কবিতা

নাজমীন মর্তুজা

মুঠোয় উপচে পড়ে উল্লাস

অমাবস্যা কাজলে ডুবে আছে আধখানা চাঁদ
নিষিদ্ধ রাত মদের ভেতরে নীল হলে
দেহের ভেতর ঝরে শ্রাবন মাস,
অন্ধ উল্লাসে আটকে থাকা
অন্তরতম ইচ্ছারা জাগে কলমের নিবে।
যদি অসার হয় লজ্জা আবার
দেদার খেয়াল ঠুমরি ধরবো তালে,
ঘুমের মলাট খুলো তখন
বুকের মাঝে বুক জড়িয়ে।
বাহিরে কেবল বোবা হলেও
ভেতরে কথার অকুল নদী
দেখবে তুমি কত কথা লেখা আছে।
যে অক্ষয় মূলধন হারিয়েছে এ জীবন
ঘর হতে চাওয়া ঘরের নিভৃতে,
তার কান্না দেখে মুচকি হাসে মহাকাল।

Related Posts

ফেরিওয়ালা

কী কী বহন করো ফেরিওয়ালা একটি পাখির ডাক ও ভোর? আগুনের চিৎকার বিষণ্ন শ্মশান কোলাহলআরও পড়ুন

ডায়েরি

বিভা আজ সারাদিন তোমার ডায়েরি পড়লাম প্রতিটি পাতায় লিখে রাখা নিজেকে শেষ করে দেওয়ার বিষাদআরও পড়ুন

কিছুটা ভাব সাবলীল সুখ

স্তন ছোঁবে খাজনা দেব না বলে যত অনুতাপ আগ্রাহ্য রইবো অফুরান, এই শহরে…. তারাগঞ্জ থেকেআরও পড়ুন

বসন্তের কোন ক্যালেন্ডার নেই

কিছু না করার ভয়াবহতায় আচ্ছন্ন আছি অনেকদিন তবে তোমাকে নিয়ে ভাবতে পারার তৃপ্তি শরীরের ছন্দেআরও পড়ুন

সুড়ঙ্গ লালিত সম্পর্ক

এক অগাধ সমুদ্র কল্পনা করতে গিয়ে সমস্ত কল ছেড়ে দিয়ে দেখেছিলাম ,এক নতুন বিদ্রুপ। আপাতআরও পড়ুন

আয়ত বাঁচা

ব্যথার জলে খেয়া ভাসিয়ে পৌঁছে গিয়েছি তোমার বুকের পারঘাটায় গোমতী ধলেশ্বরীর বাঁধ ভেঙে ভাঙা বেড়াআরও পড়ুন

একাকী ঠোঁট

বলেছিলে… ঠোঁটের একটা তেল ছবি তুমি শুরু করেছিলে… আসলে আর জানা হয়নি শেষ হয়েছিল কিনা…আরও পড়ুন

দহন

তোমার মন পেতে অনেক অভিনয় করতে হলো তাই বদলে নিয়েছি দিনলিপি অপ্রাপ্তি আর নির্লিপ্ততার ক্ষণআরও পড়ুন

বসন্ত

বসন্তের কাঁটা কি সেখানে থমকে গেছে যে সময়কে স্মৃতি বন্দি করে রেখে এসেছি ঝাঁপি ভর্তিআরও পড়ুন

মন্তব্য বন্ধ