কবিতা

নাজমীন মর্তুজা

অল্প নিয়ে থাকি

সম্পর্ক বিন্দুটা নানা শুকনো
জঞ্জালে লুকিয়ে গেলে
পর্দার আচ্ছাদনটুকু নিয়ে
দীর্ণ হওয়া বাকি,
নিরুদ্বেগ আহ্লাদ গুলো
জোডা় পায়ে হেঁটে যাবে শুন্যে।

হৃদয়ে যখন আবছা আলোয়
চেনা লোকের চলাচল প্রেমিক তখন
জল রঙে আঁকা কোন ধুসর
ছবির মত।

বাঁধা গানের সুর জমলেও
সঙ্গত পাওয়া যায় না মোক্ষম
জীবনে বর্ষামঙ্গলে উৎসবগুলো
চোখের জল কে আড়াল করে
স্মৃতি যাপনের গানে আনন্দ কাতর হই।

বাদল দিনের প্রথম কদম ফুল
ধুতুরার আকার ধারণ করে
রাজেশ্বরীর লেহেঙ্গায়
চুমকির কোরাস দেখে
শৈলজারঞ্জন তোমার মুখ
দেখবার চেষ্টা করো না।

একলা করে একলা হওয়া
শুধু তবলার তালেই ঘুঙুর খোলে
বিষাদের কণ্ঠ খোলে না।

Related Posts

ফেরিওয়ালা

কী কী বহন করো ফেরিওয়ালা একটি পাখির ডাক ও ভোর? আগুনের চিৎকার বিষণ্ন শ্মশান কোলাহলআরও পড়ুন

ডায়েরি

বিভা আজ সারাদিন তোমার ডায়েরি পড়লাম প্রতিটি পাতায় লিখে রাখা নিজেকে শেষ করে দেওয়ার বিষাদআরও পড়ুন

কিছুটা ভাব সাবলীল সুখ

স্তন ছোঁবে খাজনা দেব না বলে যত অনুতাপ আগ্রাহ্য রইবো অফুরান, এই শহরে…. তারাগঞ্জ থেকেআরও পড়ুন

বসন্তের কোন ক্যালেন্ডার নেই

কিছু না করার ভয়াবহতায় আচ্ছন্ন আছি অনেকদিন তবে তোমাকে নিয়ে ভাবতে পারার তৃপ্তি শরীরের ছন্দেআরও পড়ুন

সুড়ঙ্গ লালিত সম্পর্ক

এক অগাধ সমুদ্র কল্পনা করতে গিয়ে সমস্ত কল ছেড়ে দিয়ে দেখেছিলাম ,এক নতুন বিদ্রুপ। আপাতআরও পড়ুন

আয়ত বাঁচা

ব্যথার জলে খেয়া ভাসিয়ে পৌঁছে গিয়েছি তোমার বুকের পারঘাটায় গোমতী ধলেশ্বরীর বাঁধ ভেঙে ভাঙা বেড়াআরও পড়ুন

একাকী ঠোঁট

বলেছিলে… ঠোঁটের একটা তেল ছবি তুমি শুরু করেছিলে… আসলে আর জানা হয়নি শেষ হয়েছিল কিনা…আরও পড়ুন

দহন

তোমার মন পেতে অনেক অভিনয় করতে হলো তাই বদলে নিয়েছি দিনলিপি অপ্রাপ্তি আর নির্লিপ্ততার ক্ষণআরও পড়ুন

বসন্ত

বসন্তের কাঁটা কি সেখানে থমকে গেছে যে সময়কে স্মৃতি বন্দি করে রেখে এসেছি ঝাঁপি ভর্তিআরও পড়ুন

মন্তব্য বন্ধ